What we do

We Want To Be The Reason Of Your Success

Firstly, We’re Not Affiliated With the Government any Government or embassy

What exactly are you paying for?

Full Phone Support 7 Days a Week

Our several dozen staff are trained to take your calls to help customers with the many questions they have along the way (Not legal questions!). Our phones are answered by our in-house employees who undergo at least 3 months of training before taking a call and not outsourced to a third party. This support is offered in English,BANG LA .HINDI

Live Chat Support 7 Days a Week

Even long after you pay, chances are you will have many quick questions come up along your journey, that the convenience of chat will be more valuable to you than you even realize. We handle tens of thousands of live chats every year, and have won awards for our level of service.

Secure Drop Box for Transferring Files

Each customer gets access to secure document transfer. This is including not only the documents we generate, but sensitive documents customers need to share with us, like marriage certificates, birth certificates, bank statements, and many more. This saves on postage and increases speed of the entire process.

Secure Account Accessible from Anywhere in the World

We store your account no matter how much information you have entered, and for however long it takes you to finally petition. Some customers take quite some time gathering obscure information to answer our questionnaire and the convenience of this info saving along the way is not offered by most, if any, competitors. Additionally, both the alien and petitioner can access this account simultaneously to enter their respective sections. We even save the information in your account for when you need to apply for subsequent steps of the immigration process, making the next steps astronomically more convenient.

Document Preparation, Review & Submission

Not only does our software generate a packet that is customized with specific forms needed based on your answers, but it generates a unique checklist of supporting items to include in your petition. These forms and items could vary based on things like: do you have children; have you been previously married; what country is the alien coming from; many more. To do this manually is time consuming and risky. Apart from the automated aspects, we also have 3 humans review each petition for accuracy, typos, mistakes and to ensure all evidence is included. A full staff of petition assembly members make sure everything is 100% complete before going out to the USCIS. Catching a simple missing signature can save weeks off the overall time.

Postage Fees & Petition Materials

Included in our Premium Review Service is the postage fees from USPS Priority Mail, and all the folders, photo enclosures and other materials needed to professionally assemble your petition. We even offer the convenience of our commercial printers and shredders when needed.

Physical Offices For Walk-In Support

We have 4 offices in 3 countries, all fully staffed and able to take walk-ins. A walk-in can take up to an hour or more of free consultation answering questions and concerns about the process. Have a cup of coffee and get to know our names, and get the peace of mind that we’re going to do everything we can to get your application submitted 100% accurately and swiftly. Our offices in Philippines and China are conveniently located right next to the US embassies, where you will take your visa interview. Before the interview, you may want to stop in just to make sure everything is in order, or print some last minute items, all included in your flat fee.

Charging Government Fees to a Credit Card

The government only accepts checks and money orders. We offer a convenient service of allowing you to let us charge your card, and then we write a check to the government for you.

Payment Plans (Including USCIS Filing Fee!)

We have created a service nobody else (to our knowledge) has been able to do. We can actually finance your entire petition filing, including the USCIS filing fee. We don’t even do a credit check. We want you to reunite with your loved ones, so we offer this service to broaden it to as many as possible. We don’t even charge accruing interest. Just a flat fee divided into 6 payments. For more information on the installment plan go here.

Money-Back Guarantee

We have done a lot to maintain a 99.7% visa approval. Due to the fact we’ve done this many thousands of times, we’re familiar with every step of the process. We stand behind our experience with an approval guarantee.

SMS, Phone & Email Courtesy Notifications

We include all 3 of these ways to alert you of updates with your account. For example, our petition team discovers you have forgotten to include the appropriate passport photos. You will receive an automated phone call, email and text message alerting you that your petition is on hold until we get the passport photos. This service drastically reduces the amount of delays caused from missing items, which are more common than you may think.

Employees are the face of any organization and hence, affect the company’s brand reputation directly. On top of it, the right employees have a positive influence over customer satisfaction and the company’s balance sheet. It is hence imperative for employers to seek employee background check services to build a secure workplace environment, while ensuring that their workforce is comprised of employees who have the right skills and fit the organization’s culture and values.

 one of the leading manpower agency in Bangladesh, established in 2009 under the Company Act 2053 of Bangladesh Government Registration No. 67840/066/067 and Department of Foreign Employment. Government of  Bangladesh with and License No. 837/066/067. It was established by the leading experts in the field of recruitment service. Since the establishment, the company has gained vast experience in the field of recruitment which has enabled it to be one of the reputed company in the country. Within the short period of time company has owned remarkable achievement and has ensured the total satisfaction of many renewed companies and organization inside the country and overseas.

We believe that, in order to achieve success in business having the best groups of employees is mandatory. We find happiness is receiving the credit for our client’s success. Our team of professionals are entirely devoted in the mission to provide widely competitive human resources to our clients. So that they can acquire qualified workforce on their organization. Our key mission is to discover those talents from our vast and wide network and deliver Right Candidate to Right Company on Right Time.

The supreme vision of our company is the fulfill the need of our clients seeking for “Right People for Right Job at Right Time” Keeping this time continuously endeavor to get candidate with high potential to our esteemed clients. We are stepping forward with the vision of being the international standard service provider in the field of human resources and to be the most preferred recruitment agency in the eyes of both clients and candidates.

Core Values

        

  •  Work Professionally for Fair and Reward
  •  Work in Pressure to Meet Deadlines and Targets
  •  Ensure Productivity and Excellence
  •  Clear Goal Before Beginning the Task
  •  Commitment & Take Full Responsibility for Result
  •  Closely Touch and Impact the People’s Life
  •  Empower People to Help Their Growth.

Strength

stre

  •  Highly Experienced, Professional and Dedicated Team
  •  Well-Equipped Office with modern facilities
  •  Strong Online Based Data Bank
  •  Wide Range of Selection Opportunities
  •  Wide Networking in Domestic Market
  •  Expansion of Worldwide Network
  •  Hundreds of satisfied Clients
  •  Continuous Growth
  •  Recognized Polytechnic School for Practical Trade Test and Training
  •  Recognized Medical Testing Center
  •  Online Recruitment Portal

BECOME A PRODUCTIVE MANPOWER

Employment Visa and Orientations: After getting Employment Visa from Employer/Embassy each of the successful candidate have to attain their orientation classes to be eligible to get the final approval from BMET Bangladeshl. During the classes, the candidates are informed about their job responsibility, work environment, labor’s law and culture of their departing country. After the orientation classes, we proceed for final approval for candidate from BMET. This process may very as per different country.

 

Pre-screening and selection the candidate: After getting pre-approval for recruitment from DoFE, we publish an advertisement on Print Media (Newspapers), Electronic Media (Radio, Television, SMS) and Internet (Social Media, Email) for calling potential candidate. The applications will receive via post, fax, mail and our application data bank. Out of those application we will pre-screen the candidate and pre-interview by the recruitment officer of our company. And only short listed candidates go for further process.

 

Final Interview (by employer):

interview

 we appoint those candidate who success in the pre-screen and pre-interview for final interview in a particular day. The final interview will carry-up by the representative of Employer/Company or the recruitment officer of our company will take interview of these candidates.

Medical:

 

medical

 

changing climate and geographical conditions around the world demand for constant health vigilance. We carry out strict medical checkup of selective candidates at government-authorized laboratories, hospitals and medical centers. After clearance, inoculation is carried out. These preventive measured ensure maximum health and safety assurance by our company.

Travel Arrangement

travel-arrangement

Travel arrangement: After receiving final-Approval, we proceed the travel arrangement of the candidate. We have our dedicative travel agency that will provide proper assistance to candidates during the travel.

Employment Visa and Orientations:

After getting Employment Visa from Employer/Embassy each of the successful candidate have to attain their orientation classes to be eligible to get the final approval from BMET Bangladesh . During the classes, the candidates are informed about their job responsibility, work environment, labor’s law and culture of their departing country. After the orientation classes, we proceed for final approval for candidate from BMET. This process may very as per different country.

PHYSICAL ADDRESS VERIFICATION

Why do Address Check?

The physical address is usually the first place an organization would look for an employee in case of adverse happenings. So it’s important that the address related information of employees stored in your records is accurate, more so in context of countries like India where there is no address repository per se.

Key Validations

AuthBridge uses cutting edge, location tagging capabilities while conducting address verification on-site. Our field executives are equipped with mobile devices and state-of-the-art applications to record the verification processes, thus ensuring an audit trail.
Some aspects/antecedents we verify during an address check are:

  • Whether the stated address exists/tallies with the verified address
  • Duration of stay – whether the person stays/stayed at the address during the period mentioned
  • Relationship of the candidate with the person verifying the address details
  • Whether the residence being verified is owned or rented

And many more…

EDUCATION CHECK

Why do Education Check?

The top roles within any organisation require candidates with very particular and credible educational qualifications. The responsibility delegated to these roles is extremely high as well. This is precisely the reason why verification of educational qualifications is extremely important.
There have been many instances in the past where candidates have lied about their educational qualifications just to apply for a lucrative role within an organisation. In addition to that, candidates usually do certificate courses from top international colleges and project them in a way that the employer believes that they have done a marquee program instead. Verification of educational documents is hence the only way to uncover the truth.

Key Validations

Education verification should hence be performed on those qualification(s) of the candidate that were ‘mandatory’ for him/her to get the job that he/she has been offered. Some aspects / antecedents that we authenticate during education background check are:

  • Roll No./Registration No. of the candidate
  • The course pursued/passed by the candidate
  • The year of course completion
  • Genuineness of pass certification
  • The affiliation and accreditation check of the institute/course

Any many more…

 

Education Verification – The Current State in Bangladesh.

Individuals are indulging in getting fake educational documents from prestigious institutions for their wards or themselves for better job opportunities.The January 2018 DHAKA ‘Fake Degree’ racket saw more than 50,000 students purchasing fake certificates, marks cards and post-graduate degrees. Reports tell us that people pay as high as 3 lakhs for a single marks card or certificate. This trend extends to popular courses such as medicine. Recently, the Maharashtra Medical Council suspended 20 doctors on grounds of holding fake medical degrees. Can you imagine letting an unqualified individual prescribe drugs and perform surgical techniques on yourself or your loved one?

Cases like this place organisations on guard. Organisations can’t trust the candidates based on the degree presented by them, without conducting education verification. This is where degree verification and education background verification become crucial. Education verification in India can help you find out whether your new applicant is truly qualified for the role or not. At AuthBridge, we have extensive experience in conducting education background verification and degree verification.

Education background check can improve the quality of your hire
 

Bangladesh  is seeing the mushrooming of a lot of fake universities these days. Additionally, multiple online course platforms are offering graduate and post-graduate courses at nominal costs, removing the need for affiliated educational institutions. Without degree verification, it can be hard to verify whether the candidate truly has attended college and completed the course or not. An education background verification also helps companies identify whether the grading/marks the candidate has mentioned in his/her resume are true or not.

AuthBridge with its tech enabled offerings is well placed to research the academic history of a student to understand whether he/she attended a particular institute, how his/her academic performance was and whether he/she is being genuine in academic representation. Choosing to have your candidates subjected to education verification or education background checks is a great way to ensure you do not waste time, money and effort in hiring the wrong candidate.

What is document verification?
 
To conduct education background checks, education verification companies check the national identification documents of the candidates. They also check the academic records at the school/college, conduct degree verification by checking the marksheets and certificates and also check any reference letters that the candidate has provided from faculty and admin staff.
 
Why do we need to conduct education verification for employees?
 
An employee who really isn’t qualified for the job is a threat to the Organisation, colleagues and customers. An under-qualified employee will neither have the theoretical knowledge nor the practical skills necessary to perform their job. They may commit errors, which may turn out to be fatal for the customers and their colleagues. This may also lead to multiple legal suits against the organisation, which will result in huge financial loss and loss of goodwill.
 
What are the advantages of education verification in Bangladesh ?
With the help of degree verification organisations can:• Find out if candidates are being honest about their academic background
• Understand the skill level and competency of their employees
• Identify if candidates can become a threat to the safety of the organisation
• Hire the right people in the right roles within the organisationAt AuthBridge, we offer best in class education verification services to create a safe working environment in your Organisation.

INTERNATIONAL  BACKGROUND CHECKS

Organizations around the world conduct exhaustive verification for every employee that they hire. Geographies define the processes, applicable laws, documents required, and other such nuances for conducting background checks. Your screening partner must hence understand these specifics and be an expert to deliver the best background check results to you. Over the last 11 years, AuthBridge has built an extensive network of global partners, thereby helping deliver locally compliant background screening across 140 countries. We leverage the latest in technology, robust processes, understanding of local laws, domain expertise and a carefully selected partner network to deliver accurate and compliant global background checks to all our clients.

Key Benefits

  • Mitigate risks associated with employees
  • Ensure right fit for the job
  • Quick, Reliable and Compliant checks

For country specific information, visit our country specific page using the Global Capabilities menu. For any other information, write to us at  babullalon@gmail.com or fill the query form at the bottom of this page

Why Background Checks?

Corporate fraud has risen across industries due to corruption, money laundering, tax evasion, window dressing, faulty financial reporting and bribery owing to weak internal controls, scarcity of resources and over-riding powers of senior management.

Background checks act as the trust catalyst for relationships & business alliances. By providing quick, comprehensive insights into the identity, profile and reputation of an individual/business entity, background checks help build trust in a business relationship and alliance.

At AuthBridge, we conduct background checks across 140 countries and deliver quick, comprehensive results which is otherwise difficult to obtain. Our tech enabled delivery and domain expertise is unparalled.

Our background checks help you verify Individuals and business entities. Some of these include:

  • Employees
  • Third party vendors
  • Blue Collar workforce like Cab drivers, delivery boys etc.
  • Maids, Tenants and the likes
  • Business Entities

And more..

The AuthBridge Advantage

  • Most complete and fastest Employee Screening Service in India
  • Frictionless Candidate Experience through proprietary iBRIDGE platform
  • Best in class Client Servicing through a combination of Account Management and CRM Application
  • Robust and highly customizable client-end processes to suit specific needs of every client
  • Deep domain expertise in Employee Screening Services, having delivered millions of checks across hundreds of clients over more than a decade of existence
  • Robust standardized processes for on-boarding a client of any size within a few minutes
  • Integration capability with most of the industry standard Applicant Tracking and HR Management Systems
  • Ability to integrate the entire screening workflow with client systems via APIs

MERCHANT DUE DILIGENCE

Customers come first. Do not let your merchants/ third party vendors make frauds out of your customer! With merchants due diligence, organizations can screen their potential third party vendors/merchants from the perspective of mitigating risks related to litigation, compliance, investment and more.

The  Auth Bridge Advantage

  • Tech-enabled delivery of comprehensive business research through CorpVeda Platform
  • Quick turnaround with detailed reporting
  • Best in class Client Servicing through a combination of Account Management and CRM Application
  • Robust and highly customizable client-end processes to suit specific needs of every client

Features

  • Company Vitals
  • Directors
  • Charges
  • Shareholding Patterns
  • Financial Details
  • Credit Ratings
  • Compliance
  • Trademarks
  • Related Companies
  • Related Companies
  • Database & Media Checks
  • Documents

& more..

Why do Global Regulatory, Compliance & Debarment Database Check?

Your employees are the face of your organisation. Whatever they do and have done in the past directly affects your brand and its financials. Performing a global regulatory, compliance and debarment database search on your employees and prospects hence becomes of paramount importance. This database verification allows you to learn more about your employees and prospects, such as their affiliations with criminals, association with competing organisations, financial obligations and charges, defaults and more.

Key Validations

  • Regulatory
  • Compliance
  • Debarment
  • Politically Exposed Person (PEPs)
  • Financial Sanctions

why  do  Substance  Abuse  Testing?

Employees who abuse alcohol and drugs can create significant issues for both employers and other employees. In such a situation, drug abuse testing becomes imperative, for such workers show lower job performance and greater absenteeism, not to mention the higher medical and workers’ compensation costs.
Drug testing is one action an employer can take to determine if employees or job applicants are using drugs. However, drug testing can be problematic – if done incorrectly or in a manner inconsistent with your company’s culture. Employers can conduct drug screening using saliva, urine, hair and blood testing samples.

Key Validations

 
 

AuthBridge uses 11 years of domain experience, expertise and a network of partners to deliver drug panel tests in line with your business needs and drug screening policy. Drug screening can be conducted across panels (viz. Panel 5, Panel 6, Panel 7, Panel 8, Panel 9, Panel 10 and Panel 12) depending on drugs to be traced through the test. Drugs which can be tested through our tests include:

  • Amphetamine (AMP)
  • Antidepressants
  • Barbiturate (BAR)
  • Benzodiazepine (BZD)
  • Cocaine (COC)
  • Cocaine Metabolites
  • Marijuana Metabolites
  • Marijuana/cannabinoids
  • Methadone
  • Methyoqulone
  • Morphine/opiate (MOI)
  • Oxycodone
  • Phencyclidine
  • Phencyclidine (PCP)
  • Propoxyphene
Drug Abuse Test

India is one of the largest consumers of heroin, opium and marijuana in the world. Research shows that methamphetamine addiction is also increasing in the country. More than 3 million people in India are addicted to these drugs today.

For employers, this can be a scary proposition. Without proper substance abuse tests in place, it may become impossible to find out if the applicant for a job is sober or if he or she is a drug addict.

Thankfully, these days, there are many substance abuse testing companies who actively work with organisations and offer Drug Abuse Tests to whet the candidates. AuthBridge is one of the leading background verification company that offers substance abuse test services in India, and we can help you conduct drug testing on your new hires.

Keep your company safe with timely Substance Abuse Testing

Substance abuse assessment is essential to identify if a potential hire or an existing employee is addicted to drugs, alcohol and other addictive substances. Drug testing, in particular, will reveal if the candidate/employee comes to work intoxicated and high.

An employee who is under the influence of drugs is a threat to their colleagues and their customers. Oftentimes, an employee using drugs may commit mistakes which may be fatal to them and those around them. From wreaking havoc on the factory floor to ruining the brand image and goodwill that the company has developed, a candidate/employee can lead to untold financial and brand image losses for the company. Substance abuse testing can help the organisation prevent these situations.

Eliminate the threat of substance abuse with Substance Abuse Testing Bangladesh  services

Every company has a drug screening policy and at AuthBridge, we use our decade-long experience to help you implement and uphold your employment policies on substance abuse. As per Indian law, we recognise more than 15 drugs and conduct a variety of drug tests to check if your job applicant or existing employee is addicted to drugs or not.

We work with numerous partners who are veterans in the field of substance abuse testing and we ensure that your employees are thoroughly screened for drug abuse. Contact us for more information.

What is a Drug Abuse Test?

Drug Abuse Tests or substance abuse assessment are conducted on individuals to identify if they have a drug dependency. The individual is tested to see if there are any traces of drugs in their system and at what percentage.

These tests are used to disqualify applicants with vices such as drug and substance abuse.

How important is drug testing from an organisation point of view?

Drug testing or substance abuse testing are extremely important for an organisation as they help eliminate the threats that substance and drug abusers bring. These tests help the organisation save valuable time and money on hiring and training. They also help the organisation keep the existing employees safe from harm.

Finally, substance abuse testing helps organisations comply with requirements as prescribed by the law.

What type of samples is required to conduct Drug Abuse Testing?

During a drug test, the individual will be asked to supply samples of his/her:

·         Blood

·         Urine

·         Hair follicles

All samples must be kept unadulterated and at the right temperature.

At Grameen tours, we work with multiple partners who specialise in conducting drug testing orsubstance abuse testing in India of various panels of drugs. To conduct a comprehensive drug abuse test, write to us at www.grameentour.com

IDENTITY   VERIFICATION

Identity fraud in Bangladesh accounts for 77 % of the fraud cases. Today, as instances of identity fraud and theft are on the rise, Identity verification of all individuals (employees, candidates, vendors and visitors) quickly and in a reliable manner, is of paramount importance.

There is no denying that trust comes from being able to identify and recognize. With rapidly growing digital interactions, identity verification in real-time is becoming the need of the hour. We need to verify our employees, vendors and business partners at work, at various points like, visitor management systems, daily attendance, on-boarding of new staff or customers, to name a few. This goes a long way in ensuring that all the employees that you hire are the right fit for your organisation.

Identity verification is the stepping stone for ensuring a secure workplace! Genuineness of the stated identity documents needs to be checked before basing trust and granting access and privileges! Using advanced APIs, businesses can streamline identity verification of employees, candidates  and visitors on campus or  banks can facilitate know your customer services by validating Aadhaar, PAN Card, Voter ID, Driving License or Passport.

We offer advanced platforms to deliver identity check results in real time.

The Grameen tour Advantage

  • Fastest identity verification services using tech-enabled platforms
  • Registered AUA (Authentication User Agency) with UIDAI for Aadhaar verification
  • API integration with your systems for easy delivery of reports

Why do Bangladesh-Credit History Check?

Organisations only entrust individuals with a sound financial history for roles of repute. Credit default history or low credit scores reflect poorly upon a person’s financial management capabilities and most organisations intend to stay away from such candidates, as they don’t want them to manage their finances.
Although the candidate selection procedure varies from one organisation to another, a credit history check enables organisations to at least make well-informed decisions.

Key Validations

AuthBridge offers quick credit history check to provide a comprehensive understanding of one’s financial background. This includes:

  • Validated credit scores from CIBIL, Experian, Equifax and the likes
  • Complete credit history including records of credit defaults

And many more…

 

Credit Report Check for Organisations
 
 

Recruiters and bankers have one thing in common. They both have to conduct a thorough background check of their applicants to understand if the candidates have a history of fraud, deceit, and a bad reputation to their name.A credit score check is one of the many background checks that organisations and institutions need to conduct to ensure they are selecting the right applicant for the job.

For an individual, maintaining a good credit rating is essential. Recruiters must run a credit check on its On-boarding candidates as it may reflect the creditworthiness of the individual. A negative credit report gives an indication that the employee may not be able to handle sensitive information of the organisation.

Grameen tours  has partnered with multiple credit bureaus and local Bangladeshi bank and similar institutions to conduct reliable credit report check on individuals.

 

Risk Mitigation with credit report check in Bangladesh.
 

A good credit score and a clear credit report is an indication that the company is placing its bet on the right candidate. Having a credit score check conducted by a qualified credit report check company can be of a great help.

A Credit Score report will help you identify if your potential hire has committed frauds.

Are you a recruiter in the process of hiring new employees?

Conducting Credit Check in India will help you understand whether your candidates have ever defaulted on any payment in the past, have committed any financial fraud or have a poor financial reputation to their name.

Knowledge of this will help you recognise whether the candidate is worth hiring and investing in or not. It will also allow you to raise an alarm with the authorities on time about the possibility of a financial fraud in your organisation. A good credit rating is indicative that the candidate is a genuine person and a reliable job applicant. A reliable credit report check company will analyse the credit rating of individuals, understand their earning and spending patterns.
What is a credit check?
 
Credit report checks are conducted by financial institutions and organisations in order to understand whether the loan applicant/job applicant has a history of financial fraud to their name and if they are as honest as they claim to be. The financial institutions and organisations check the credit score of the applicant to analyse if they have any cases of financial fraud registered against them in the past.
 
How is it helpful for a financial institution to reduce any risk?
 
Credit Score Check helps financial institutions and organisations analyse if candidates can be trusted with the company money, information and responsibilities or not. This type of credit report check will allow bankers and hiring managers understand whether their organisational assets will be safe with the employee/applicant or not. A credit report check company can help financial institutions reduce monetary loss by intimating them of the presence of a fraudster, allowing them to contact the authorities immediately.A reliable credit report check company will analyse the credit rating of individuals, understand their earning and spending patterns.
 

স্টুডেন্ট ভিসা

গ্রামীন টুরস এন্ড ট্রাভেলস এর পক্ষ থেকে জানাচ্ছি আন্তরিক  শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।বিদেশে যাবার প্রবনতা নতুন কিছু নয়, প্রতি বছর হাজার হাজার মানুষ পাড়ি জমাচ্ছেন পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে, কেউ কাজের খোঁজে কেউ উচ্চ শিক্ষার জন্য। দেশের জন্য অনেক অর্জন ও রয়েছে তাদের মাঝ থেকে। তবে ইদানিং কালে উচ্চ শিক্ষার জন্য বিদেশ যাবার প্রবনতা আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে অনেক বেশি। সে অর্থে প্রতারিত হবার সংখ্যাটাও আগের চেয়ে বেড়ে গিয়েছে। আমরা এতটাই মরিয়া বিদেশ যাবার জন্য- যে সাধারন জ্ঞ্যানটুকু ও হারিয়ে ফেলি, কেন?

আমরা তো লেখাপড়া জানা মানুষ, স্টুডেন্ট ভিসায় যাব পড়তে, তাহলে কেন যে যা বলে তাতেই আমরা রাজি, কোন ভাবে একবার পাড়ি জমাতে পারলেই হল। ব্যাস অন্ধের মত কাড়ি কাড়ি টাকা কারো হাতে তুলে দিতে একবার পেছন ফিরে তাকাই না, পরিবারের সবার স্বপ্ন যে লুকিয়ে আছে এর মাঝে, হয়ত একটা ভুল সব তছনছ করে দিবে। বিদেশ যাবার জন্য স্বপ্ন নয় বাস্তবে বসবাস করুন তাহলে সফলতা পাবেন।  সাধারণত বাংলাদেশ থেকে একজন শিক্ষার্থীকে আয়ারল্যান্ড ও ব্রিটেনসহ ইউরোপ বা আমেরিকার যে কোনো দেশে পড়াশোনার জন্য আসতে হলে ছয় থেকে বার লাখ টাকার প্রয়োজন। আর যদি কোন দালাল-বাটপারের খপ্পরে পড়া হয়, তাহলে তো আম-ছালা দুটোই খুইয়ে ওখানেই ইতি। বাংলাদেশের সব প্রতিকূলতা জয় করে সৌভাগ্যক্রমে কেউ যদি কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যে পা ফেলতেও সক্ষম হয়, তার অর্থ এই নয় যে পাতালপুরীর স্বর্ণের সন্ধান সে পেয়ে গেছে। স্বজন ও বান্ধববিহীন প্রবাস জীবন যতটুকু আনন্দের, স্বপ্নের ও স্বর্গের মনে হয়, বাস্তবে কিন্তু তার ছিটেফোঁটাও নেই। যাদের কপালে জুটেছে পরবাস, তারাই কেবল বোঝেন এর মর্মযাতনা।

 

অনেকেই প্রশ্ন করে থাকেন ভাই অনেক কিছুই তো বুঝিনা, কোথায় কিভাবে এপ্লাই করব। কাগজপত্র কিভাবে তৈরি করব, অনেক কঠিন মনে হয় ইত্যকার যাবতীয় বিষয়।
আমাদের কথা হচ্ছে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে জানেন ? ফ্রেন্ডশিপ করতে জানেন,    কোন দেশের ক্ষেত্রে আই ই এল টি এস ষ্কোর কত প্রয়োজন ।বাবা মাকে   কিভাবে পটাতে হয় জানেন, কিভাবে বেশি  টাকা খরচ করা য়ায়  জানেন, সব জানি , কেন জানেন কারণটা খুব সোজা, এটাতে অনেক আগ্রহ আর যার সাথে বাস্তবতা জড়িয়ে আছে। তাই খুব সহজে এগুলো করতে পারেন। এখন কথা হচ্ছে তাহলে বিদেশে যাবার ক্ষেত্রে সব কেন স্বপ্ন থাকে এখানে কেন বাস্তবতার কমতি? যাই হোক নিজেকে বাঁচাবেন কি করে? একটু সচেতন হোন, একটু চোখ কান খোলা রাখুন, অনেক ভাল করবেন অনেক উপকার পাবেন, নিজেও করতে পারবেন। বর্তমানে ইন্টারনেট সবার হাতে হাতে, এবং আমরা সবাই কোন না কোন সামাজিক যোগাযোগের সাইট এ যুক্ত আছে, এটাই আপনার সবথেকে বড় প্লাটফর্ম এখানে কি নেই? যাই লিখে সার্চ দেন কিছু না কিছু তথ্য পাবেন ই। তার জন্য আলাদা কোন টাইম লাগেনা, যখন যা মন চায় করতে পারেন। তো সেটা নিজের উপকারে লাগান।

  • উচ্চশিক্ষার্থে বিদেশের পথে পা বাড়ান তারা কি আদৌ জানেন কোথায় যাচ্ছেন, কী পড়ছেন, কী শিখছেন? কারা পড়ান? পড়া শেষে আদৌ কি কোনো ডিগ্রি পাওয়া যায়? দেশ থেকে বেরুনোর আগেই এ বিষয়গুলো ভালোভাবে জেনে নেওয়া উচিত।
  • উচ্চশিক্ষা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান? কোন শহরের কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে কী পড়ানো হয়, কোথায় বৃত্তি পাওয়া যায়, ভিসা পেতে কী করতে হবে?
  • বাংলাদেশ থেকে যেসব ছেলেমেয়ে উচ্চশিক্ষার্থে বিদেশ গমন করেন তাদের সিংহভাগই কোনো বিশ্ববিদ্যলয়ে যান না। বরং ওরা কোনো কলেজে ভর্তি হন বা হওয়ার চেষ্টা করেন। যেসব কলেজে ভর্তি হয়ে তারা পড়াশোনা করেন, এগুলোর অধিকাংশই বেসরকারি মালিকানাধীন। ওই মালিকরা বাংলাদেশের কিন্ডারগার্টেনের ব্যবসায়ী মালিকদের মতই অনেকটা। বিভিন্ন দেশের মালিকদের মতো বাংলাদেশি মালিকরাও এ ব্যবসার সাথে জড়িত।
  • মূলত এসব কলেজের অধিকাংশেরই কোনো স্থায়ী ক্যাম্পাস থাকে না। দু-তিনটি রুম ভাড়া নিয়ে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে। একটা প্রতিষ্ঠানে যে কজন শিক্ষক থাকেন তাদের মধ্যে একজনকে পাওয়া যাবে ফুলটাইমার হিসেবে। এসব কলেজ খোলার জন্য আহামরি কোনো কিছুর প্রয়োজন হয় না। স্থানীয় প্রশাসন থেকে যৎসামান্য একটা ফি দিয়ে সনদ আদায় করতে পারলেই কেল্লা ফতে। এই কলেজগুলো তিন-চার বছর পর একটি ডিগ্রিও দিতে পারে না। একটা সার্টিফিকেট বা ডিপ্লোমা পাওয়া যায়, যা কিনা আর্থিক, শারীরিক ও মানসিক ক্ষয়ক্ষতির তুলনায় একেবারেই নগণ্য। তখন একূল-ওকূল দু কুল হারিয়ে নৈরাশ্যের সাগরে হাবুডুবু খেতে হয় অনেককেই।

আপনার লক্ষ্যে পৌছার পথ :

বিদেশে পড়তে যাওয়ার সম্ভাব্য বিষয়গুলো বিবেচনার পর নিজেকে প্রশ্ন করুন, কেন বিদেশে পড়তে যেতে চান। কারনগুলো খুজে বের করতে কিছুটা সময় নিন। কেননা এই কারন গুলোর সাথে জরিয়ে আছে আপনার ভবিষ্যত সম্ভাবনা। হয়তো আপনি নতুন একটি সংস্কৃতি সম্পর্কে জানতে ইচ্ছুক অথবা নতুন ভাষা শিখতে চান, কিংবা আপনি আপনার পড়ালেখার ক্ষেত্রটিকে ভিন্নমুখী করতে চান্স বা আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন একটি ডিগ্রি অর্জন করতে চান। কারন যাই হোক না কেন, একটি নোট বইয়ে সেগুলো লিপিবদ্ধ করুন।

বিদেশে যাওয়ার অনেকগুলো কারন থাকতে পারে, তবে তা যেন সার্থক ও ইতিবাচক হয়। মনে রাখবেন, একটি ভিন্ন দেশের ভিন্ন পরিমন্ডলে জীবন যাপন এবং শিক্ষা গ্রহনের সাথে মানিয়ে নেয়া কঠিন ও শ্রমসাধ্য। তাই লক্ষের ব্যাপারে যতবেশী সচেতন ও উদ্যেগী হবেন, বাস্তব জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে তত বেশি লাভবান হবেন।

বিদেশে উচ্চ শিক্ষার প্রস্তুতি :

  1. প্রথম প্রস্তুতি হতে পারে পড়াশোনার মাধ্যমে নিজেকে প্রস্তুত করা। কারণ কেবল পরীক্ষায় ভালো ফল নয় সত্যিকার শিক্ষাটা কাজে আসবে এখানে। ইংরেজীতে দক্ষতা থাকতে হবে। তবে চীন, জাপান, জার্মানী, ফ্রান্স এসব দেশে যেতে চাইলে ঐ দেশের ভাষাটা শিখে নেয়া ভালো।
  2. সকল শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট ইংরেজীতে করিয়ে নিতে হবে।
  3. পাসপোর্টে যাতে কোন সমস্যা না থাকে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট হওয়া দরকার।
  4. যে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি হতে চাইছে তার খরচ বহন করা তার পক্ষে সম্ভব কিনা সেটা আগে থেকেই যাচাই করা উচিত। যদি কর্তৃপক্ষ মনে করে ব্যয়ভার বহন করা শিক্ষার্থীর পক্ষে সম্ভব নয়, তাহলে ভিসা মিলবে না।
  5. GRE, SAT, GMAT এবং IELTS বা TOFEL-এ ভালো স্কোর না থাকলে বিদেশে পড়াশোনার চেষ্টা করে লাভ নেই। বিশেষত বৃত্তি যে মিলবে না এটা নিশ্চিত।
  6. কোন এডুকেশন কনসালটেন্সি ফার্মের মাধ্যমে প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে চাইলে আগে তাদের সম্পর্কে খোঁজ খবর নেয়া উচিত।
  7. সঠিক কোর্স নির্ধারণ :
  8. পেশাগত উন্নতি ও লক্ষে পৌছানোর জন্য কোন ধরনের পেশা আপনার জন্য উপযুক্ত তা খুঁজে বের করা মন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি পেশাগত সফলতা বা আশা-আকাঙ্ক্ষার বাস্তবায়নে সেই পেশার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ কোর্সে উচ্চশিক্ষা গ্রহনো কম তাৎপর্যপূর্ন নয়। তাই বর্তমান গ্লোবালাইজেশনের যুগে উচ্চশিক্ষার অনেক কোর্সের মধ্যে আপনাকে এমন একটী কোর্স বেছে নিতে হবে যা আপনার ভবিষ্যৎ পেশাগত দক্ষতার পূর্ব প্রস্তুতি হিসাবে গণ্য হবে।
  9. তাছাড়া বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য আপনি একেবারে একটি নতুন বিষয়ও বেছে নিতে পারেন। আমাদের দেশে প্রচলিত নয় কিন্তু বিশ্ব প্রেক্ষাপটে গুরত্বপূর্ন এবং চাহিদা সম্পন্ন এরকম কোন বিষয়কেও আপনি পছন্দ করতে পারেন। তবে সাধারন বিদেশের পাশাপাশি আমাদের দেশও যথেষ্ট চাহিদা আছে এরকম কোন কোর্সকে উচ্চশিক্ষার নির্বাচন করাই শ্রেয়। উপযুতক কোর্স নির্বাচনে যে বিষয় গুলো লক্ষ রাখা উচিত-
  10. আপনি পেশাগত জীবনে কোন পেশায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চান এবং সে অনুযায়ী আপনার বর্তমান যোগ্যতা সাপেক্ষে কোন কোর্সটি সবচেয়ে উপযোগী বলে মনে হয়?
  11. উক্ত কোর্সের কোন বিকল্প কোর্স আছে কি না?
  12. আপনি যে দেশে পড়তে যেতে আগ্রহী সে দেশে উক্ত কোর্সে উচ্চশিক্ষার মান বা পদ্ধতি বিশ্বে গ্রহন যোগ্য বা কতটুকু সমইয়োপযোগী।কাঙ্ক্ষিত কোর্সটিতে পড়াশোনা শেষে কোথায় কর্মক্ষেত্র গড়ে তুলবেন এবং সেখানে এর সুবিধা বা সম্ভাবনা ও অসুবিধা বা প্রতিবন্ধকতার মাত্রা কতটুকু?আপনি যে দেশে পড়তে যাচ্ছেন সেখানে উক্ত কোর্সটি কত বছর মেয়াদি এবং টিউশন ফি ও অন্যান্য খরচ আপনার সামর্থের মধ্যে কিনা?উক্ত কোর্সে পড়াশোনাকালীন সময়ে কোন আর্থিক সহায়তা বা বৃত্তির ব্যবস্থা রয়েছে কিনা, যদি তবে কি ধরনের যোগ্যতার ভিত্তিতে নির্ধারন করা হবে এবং আপনি কতটুকু পূরন করতে সক্ষম হবেন
  13. উল্লেক্ষিত প্রশ্নগুলোর সঠিক ও গ্রহনযোগ্য ব্যাখ্যা পাওয়ার জন্য আপনি উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর তথ্য ও পরামর্শ কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ করে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা নিতে পারেন। এছাড়া উক্তকোর্সে পড়াশোনা করেছেন বা করছেন এরকম কোন বিদেশী বা দেশি শিক্ষার্থীর সাথে আলাপ করে নিতে পারেন।

ক্রেডিট ট্রান্সফার :

  1. আপনি দেশেরই কোন বিশ্ববিদ্যালইয়ে একটি কোর্সে কিছুদিন পড়াশোনা করেছেন বা করছেন, কিন্তু এখন আপনি ওই কোর্সেই বিদেশের কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করতে আগ্রহী, সেক্ষেত্রে দেশে সম্পন্নকৃত কোর্সটির ক্রেডিট সমূহ গ্রহন করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষের নিকট এক্সেমশন দাবি করতে পারেন।
  2. আপনার কৃত কোর্সটির জন্য কতটুকু ক্রেডিট পাবেন তা নির্ধারন করবে ঐ বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ। আপনাকে কাগজ পত্রের মাধ্যমে প্রমান করতে হবে যে আপনার কৃত কোর্স স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে করা এবং এই বিষয় সমূহ বিদেশের ঐ বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যসূচির অন্তর্ভূক্ত বিষয়েরই অনুরূপ। ক্রেডিট ট্রান্সফারের জন্য যে সনদ ও কাগজপত্র বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ আপনার কাছে চাইতে পারেন সেগুলো হলো-
  3. একাডেমিক সার্টিফিকেট, ট্রান্সক্রিপ্ট, প্রত্যয়নপত্র।
  4. কোর্সের আউটলাইন এবং পাঠ্যতালিকা।
  5. কোর্স লেভেল সম্পর্কিত তথ্যাদি।
  6. কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয় অনুষদ কতৃক সুপারিসনামা।
  7. কোর্স এসেসমেন্টের পদ্ধতি (পরীক্ষা, রচনা, প্রজেক্ট ওয়ার্ক ইত্যাদি)।
  8. গ্রেডিং সিস্টম সংক্রান্ত তথ্য।
  9. কোর্সের মেয়াদ, লেকচার-ঘন্টা, ল্যাবরেটরিতে কাজের ঘন্টা, ফিল্ডওয়ার্ক ইত্যাদি।
দেশ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচন:

 

 

 
 
 
 
বিদেশে পড়াশোনার জন্য দেশ নির্বাচনের ক্ষেত্রে অবশ্যি গভীরভাবে ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কারন প্রতিটি দেশে পড়াশোনার সুযোগ-সুবিধা এক রকম নয়। যেমন- কোন দেশে টিউশন ফি বেশি, কোন দেশে কম, আবার টিউশন ফি আদৌ লাগেনা আবার কোন দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একই মানের কোর্সের মেয়াদ কম, কোন দেশে আবার বেশি। কোথাও পার্ট টাইম জব করা যায়, কোথও পার্ট টাইম জব হয়তো পাওয়া যায় না, আবার কোথাও কঠোর ভাবে নিষিদ্ধ। কোন দেশে সহজেই স্কলারশিপ পাওয়া যায়, আবার কোন কোন দেশে স্কলারশিপ পাওয়া বেশ কঠিন। কোন দেশের আবহাওয়া খুবই বিরূপ, আবার কোন দেশের আবহাওয়া নান্দনিক ও স্বাস্থকর। আবার এমনও দেশ আছে যেখানে পড়াশোনাকালীন সময়েই নাগরিকত্ব পাওয়ার সম্ভাবনা থকে। সুতরাং সবকছু সুক্ষ্মাতিসুক্ষ বিশ্লেষন করে, সময় নিয়ে ভেবে চিন্তে তবেই দেশ নির্বাচন করুন। এক্ষেত্রে এ সাইটে প্রদত্ত দেশগুলো সম্পর্কে সর্বোচ্চ সংখ্যক তথ্য দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। তারপরও আত্মীয়স্বজন বা পরিচিত কেঊ যারা ঐ দেশে থাকেন বা ঐ দেশে সম্পর্কে ভাল জানেন, আপনার উচিত তাদের কাছ থেকে আরও তথ্য সংগ্রহ করা। বর্তমানে প্রায় প্রত্যেকটি দেশেরই বিভিন্ন বিভাগের নিজস্ব সরকারি ওয়েব সাইট আছে। যদি আপনার জানা না থাকে তবে Google বা Yahoo- এ রকম সার্চ ইঞ্জিন এর মাধ্যমে নির্দিষ্ট দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েব সাইটগূলো খুঁজে নিয়ে ভিজিট করুন এবং সেখানকার শিক্ষা ব্যাবস্থা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, খরচ, স্কলারশিপ তথ্য, আবাসন ব্যাবস্থা, জীবনধারা, আবহাওয়া, সংস্কৃতি ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত জানার পর উপযুক্ত দেশ নির্বাচন করুন। এক্ষত্রে দু-তিনটি দেশ নির্বাচন করা ভাল। কারন একটি মাত্র দেশ পছন্দ করলে সেখানকার কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযোগ পাওয়ার পরও ভিসা পেতে ব্যর্থ হতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনার বিদেশে যাত্রা অন্তত এক শিক্ষাবর্ষের জন্য পিছিয়ে যাবে।
দেশ নির্বাচনের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্বাচনের ক্ষেত্রেও বেশ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানকে প্রাথমিক ভাবে নির্বাচন করুন। কারন আর কিছুই না, অধিক পরিমান শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শর্ত গুলো জেনে নিয়ে আপনার জন্য উপযুক্ত প্রতিষ্ঠান নির্বাচন করতে সহজ হবে। আর ২/১ টি প্রতিষ্ঠান নির্বাচন করলে হয়তো দেখা যাবে তাদের শর্তগুলো পালন করে সেখানে ভর্তি হওয়া বা পড়াশোনা করা আপনার জন্য অপেক্ষাকৃত কঠিন অথবা অনেক ক্ষেত্রে অসম্ভবও হতে পারে। তাই কমপক্ষে ৮/১০ টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রাথমিকভাবে যোগাযোগ করে তাদের বিভিন্ন তথ্য জানার চেষ্টা করুন এবং এক্ষেত্রে যে সব বিষয়কে গুরত্ব দিতে হবে সেগুলো হলো-

 

  • আপনার পছন্দকৃত বিষয় আছে কি না।
  • পড়াশোনার মান কেমন।
  • শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও শিক্ষকদের ব্যাকগ্রাউন্ড কেমন।
  • শিক্ষা প্রুতিষ্ঠানের অবস্থান কোথায়।
  • লেখাপড়ার ও অন্যান্য খরচ কত এবং পরিশোধের পদ্ধতি কেমন।
  • স্কলারশিপ সুবিধা বা আর্থিক সহায়তার সম্ভাবনা আছে কি না।
  • আবাসন ব্যবস্থা।
  • ভর্তি যোগ্যতা ইত্যাদি।
  • যারা স্কলারশিপ নিয়ে পড়তে যাবেন তাদেরকে যে বিষয় গুলো ভাবতে হবে-
  • স্কলারশিপের মেয়াদ কত এবং নবায়ন করা যাবে কিনা, যদি যায় তবে কি ধরনের যোগ্যতার ভিত্তিতে?
  • স্কলারশিপের অর্থে কি কি খরচ করা যাবে?
  • সেখানকার জীবন যাত্রা কেমন ব্য্য বহুল এবং আপনার পক্ষে স্কলারশিপের অর্থে তা নির্বাহ করে লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়া সম্ভব কি না

 

যারা নিজ খরচে পড়াশোনা করতে যাবেন তাদের যে বিষয় গুলো ভাবতে হবে-

 

  1. আপনার পছন্দের কোর্সটিতে সুর্বমোট খরচ কত
  2. এবং কিভাবে পরিশোধ করতে হবে।
  3. উল্লেখ্য যে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ই-মেইল করলে তারা মোট খরচের একটি খসড়া হিসাব ও পরিশোধের পদ্ধতি জানিয়ে দেবে। এতে যে বিষয়গুলো সাধারনত অন্তর্ভূক্ত থাকবে সেগুলো হলো- টিউশন ফি, আবাসন খরচ, খাবার খরচ, বইপত্র বাবদ খরচ, ইন্স্যুরেন্স শরচ ইত্যাদি।
  4. খরচ গুলো কমানোর কোন বিকল্প উপায় আছে কিনা।
  5. যেমন- অনেক ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে না থেকে কোন পরিবারের সাথে থাকলে খরচ কম লাগে। আবার কোন কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে ২ সেমিস্টারের টিউশন ফি একসাথে দিলে কিছুটা কমিশন বা ছাড় পাওয়া যায়।
  6. আর্থিক সহায়তা, ঋণ বা স্কলারশিপ পাওয়ার সম্ভাবনা আছে কিনা। যদি থাকে তবে কি যোগ্যতার ভিত্তিতে।
  7. দেশটির জীবনযাত্রা কেমন ব্যায়বহুল এবং আপনার পক্ষে তা নির্বাহ করে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব কি না।

প্রয়োজনীয় কাগপত্র তৈরি:

বিদেশে পড়তে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে প্রথমেই একাডেমিক কাগজপত্রসহ যাবতীয় ডকুমেন্টস প্রস্তুত করার ব্যাপারে নজর দিতে হবে। এক্ষেত্রে সকল কাগজপত্র ইংরেজি ভাষায় হতে হবে। ইদানিং বোর্ড বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকেই পরীক্ষা সনদপত্র বা নম্বরপত্রগুলো ইংরেজিতে প্রদান করা হচ্ছে। তবে যে সব কাগজপত্র ইংরেজিতে করা নেই সে সব অনুবাদ করিয়ে নিতে হবে। এক্ষেত্রে দু’ভাবে অনুবাদ করা যায়। বোর্ডের একটি নির্দিষ্ট ফরম পূরনের মাধ্যমে নির্দিষ্ট পরিমান ফি বাংক ড্রাফটের মাধ্যমে জমা দিয়ে শিক্ষা বোর্ড থেকে সনদপত্র ও নাম্বারপত্রের অনুবাদ কপি তোলা যায়। তবে পূর্বের মূলকপি বোর্ড কর্তৃপক্ষকে জমা দিতে হবে। এটাই হচ্ছে সনদপত্র ইংরেজি ভাষায় অনুবাদের উত্তম পদ্ধতি। তবে একটু সময় বেশি লাগে বলে আপনি ইচ্ছে করলে নোটারি পাবলিক থেকেও অনুবাদ করাতে পারেন। এক্ষেত্রে পূর্বের মূলকপি এবং অনুবাদকৃত কপি একসাথে রাখতে হয়।

উল্ল্যেখ যে, ছবি এবং প্রয়োজনীয় সকল ফটোকপি অবশ্যই সত্যায়িত করে নিতে হবে। বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রানালয়ের একটি বিশেষ শাখা থেকে সকল কাগজ পত্রের মূলকপি দেখানো সাপেক্ষে বিনামূল্যে সত্যায়িত করা যায়। এছাড়া নোটারি পাবলিক থেকেও সত্যায়িত করা যায়।

আবেদন এবং ভর্তি প্রসেসিং:

নির্দিষ্ট দেশের বাছাইকৃত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির জন্য প্রথমে ভর্তি তথ্য, প্রসপেকটাস ও ভর্তি ফরম চেয়ে আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্র কুরিয়ার যোগে, ফ্যাক্স বা ই-মেইলের মাধ্যমে পাঠানো যায়। তবে ই-মেইলে পাঠানো ভাল। আবেদন পত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পৌচ্ছালে তারা আপনার ঠিকানায় ভর্তির আবেদন ফরম ও প্রসপেকটাস পাঠিয়ে দিবে। এতে সাধারনত দুই থে তিন সপ্তাহ সময় লাগে। তবে অনেক ক্ষেত্রে আপনার ই-মেইল আড্রেস দিলে সেখানেও আবেদন ফরম দিতে পারে। আবার কোন কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তাদের ওয়েব সাইটে আবেদন ফরম দিয়ে থেকে। এক্ষেত্রে ডাউনলোড করে প্রিন্ট করে নিতে হবে। এরপর আবেদন ফরমটি প্রয়োজনীয় সকল তথ্য দিয়ে নির্ভুলভাবে পূরন করে প্রসপেকটাসের নির্দেশনা অনুসারে প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র ও আবেদন ফি/ব্যাংক ড্রাফট কোন আন্তর্জাতিক কুরিয়ার সার্ভিস বা রাষ্ট্রীয় দাকের মাধ্যমে নির্দেশিত ঠিকানায় পাঠাতে হবে। উল্লেখ্য যে, আবেদন ফি অফেরত যোগ্য। আর হ্যাঁ, মনে রাখা প্রয়োজন যে, কোন প্রকার অসত্য তথ্য দিলে ভর্তি অনিশ্চিত বা পরবির্তিতে বাতিলের সম্ভাবনা থেকে এবং ভিসা পেতে সমস্যা হতে পারে। তাছারা ফরম পূরনের সময় কাটাকাটি হওয়ার সম্ভাবনা থাকলে ফরমটি ফটোকপি করে আগে ফটোকপি পূরন করুন এবং পরবর্তীতে সেটা দেখে মূল ফরমটি পূরন করুন।

আবেদনপত্রের সাথে সাধারনত যেসব কাগজপত্র পাঠাতে হয়-

১. সকল একাডেমিক কাগজপত্রঃ মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক বা তদূর্ধব সকল সনদপত্র ও নম্বরপত্রের সত্যায়িত ফটকপি এবং সাবেক বা বর্তমান শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের সুপারিশপত্র।
২. ভাষাগত দক্ষতার প্রমানপত্রঃ নির্বাচিত দেশ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শর্তানুযায়ী যে ভাষার দক্ষতা থাকতে হবে সে ভাষায় দক্ষতার প্রমান স্বরূপ ভাষা শিক্ষা কোর্সের সনদপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি।
৩. উলেখ্য যে, ইংরেজি ছাড়া অন্য ভাষার ক্ষেত্রে যদি সে দেশে গিয়ে চান তবে তার পূর্বতন ভাষা হিসেবে ইংরেজিতে দক্ষতার প্রমান স্বরূপ IELTS/TOFEL এর সনদপত্রের সত্যায়িত কপি পাঠাতে হবে। তবে কোন কোন দেশের ক্ষেত্রে ভাষাগত দক্ষতার সনদ পত্র লাগে না।
৪. আর্থিক সামর্থের প্রমানপত্রঃ যিনি আপনার বিদেশে পড়াশোনাকালীন যাবতীয় খরচ বহন করবেন তার অঙ্গীকারপত্র, আর্থিক সামর্থের প্রমানস্বরূপ ব্যাংক গ্যারান্টিপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি। উল্লেখ যে, নিজ খরচে পড়ার ক্ষেত্রে আর্থিক সামর্থের প্রমানস্বরূপ স্পন্সরের নামে দেশভেদে বিভিন্ন অংকের অর্থের ব্যাংক সলভেন্সি সার্টিফিকেট এবং অনেক ক্ষেত্রে এ সলভেন্সি সার্টিফিকেট এর বৈধতার পক্ষে বিগত ৬ মাসের ব্যাংক লেনদেন রিপোর্টের সত্যায়িত কপি পাঠাতে হয়।
৫. আবেদন ফি-এর ব্যাংক ড্রাফটঃ দেশ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানভেদে আবেদন ফি বাবদ ৭০০ টাকা থেকে ১০,০০০ টাকার ব্যাংক ড্রাফট পাঠাতে হয়।

ভর্তির অনুমতিপত্র পাওয়ার পর করনীয়:

ভর্তির অনুমতিপত্র বা অফার লেটার পাওয়ার পর সাধারনত অফার লেটারে বা প্রসপেক্টাসে উল্লেখিত টিউশন ফি’র সমপরিমান অর্থ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নামে ব্যাংক ড্রাফট করতে হবে যা ভিসা ইন্টারভিউয়ের সময় দূতাবাসে দেখাতে হয় এবং ভিসা পেলে পরবর্তিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জমা দিয়ে দিতে হবে। কিন্তু টিউশন ফি বা এরকম বেশি পরিমান অর্থ ব্যাংক ড্রাফট করতে হলে ব্যাংকে নিজের নামে একটি স্টুডেন্ট ফাইল চালু করতে হবে এবং সেখান থেকেই বিদেশে পড়াশোনাকালীন সকল আর্থিক লেনদেন পরিচালনা করা যাবে। ব্যাংকে স্টুডেন্ট ফাইল খোলার জন্য যে সমস্ত কাগজপত্র লাগে সেগুলো হল-

(১) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রসপেক্টাস বা ভর্তির প্রমানপত্র বা ভর্তি ফরম,

(২) পাসপোর্ট,

(৩) শিক্ষাগত সনদপত্র,

(৪) পুলিশ ছাডপত্র এবং

(৫) ছবি।

উল্লেখ যে, বিভিন্ন ব্যাংকের বৈদেশিক বিনিময় শাখাগুলোতে স্টুডেন্ট ফাইল খোলার জন্য আলাদা কেন্দ্র রয়েছে।

ভিসা প্রসেসিং :

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হওয়ার পর তাদের পাঠানো অফার লেটার বা ভর্তির অনুমতিপত্রে উল্লেখিত ডেডলাইনের মধ্যেই প্রতিষ্ঠানে পৌচ্ছাতে হবে। অন্যথায় ভর্তি বাতিল হবে। তাই নির্দিষ্ট তারিখের পূর্বে আপনাকে সেদেশের ভিসা সংগ্রহ করতে হবে। ভিসা প্রদানের ক্ষেত্রে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মধ্যে কিছুটা পার্থক্য থাকলেও প্রায় সব নিয়মই এক রকম। কোন দেশে ভিসা পেতে হলে প্রথমে সে দেশের ভিসার আবেদনপত্র সংগ্রহ করতে হয়। কোন কোন ক্ষেত্রে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই ভিসার আবেদনপত্র সরবরাহ করে থাকে। তা না হলে নির্দিষ্ট দূতাবাস থেকে ভিসার আবেদনপত্র সংগ্রহ করে সঠিক তথ্য দিয়ে নির্ভুল ভাবে প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্রসহ দূতাবাসে জমা দিতে হবে এবং নির্দিষ্ট দিনে ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে ভিসা সংগ্রহ করতে হবে।

ভিসার জন্য সাধারনত যে সব কাগগপত্র লাগে-

১. শিক্ষাগত কাগজপত্র: সনদপত্র, নম্বরপত্র, প্রতিষ্ঠান প্রধানের প্রশংসাপত্রের সত্যায়িত ফটোকপিসহ মূলকপি
২. পাসপোর্টঃ পাসপোর্টের মেয়াদ কমপক্ষে ১ বছর থাকতে হবে এবং পেশা, জন্ম তারিখ ও অন্যান্য সকল তথ্যের সাথে শিক্ষাগত কাগজ পত্রের মিল থাকতে হবে। আপনার পাসপোর্ট করা না থাকলে পাসপোর্ট করে নিন।
৩. শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির প্রমানপত্র বা অফার লেটার।
৪. আর্থিক সামর্থ্যের প্রমানপত্রঃ আবেদন ও ভর্তি প্রসেসিং অংশে এ সম্পর্কে বিস্তারিত দেখে নিন।
৫. ছবিঃ সাদা ব্যাকগ্রউন্ডে, পরিস্কার ভদ্র পোশাকে তোলা স্মার্ট ও স্পষ্ট ছবি হলে ভাল হয় এবং রঙ্গিন হওয়াই উত্তম।
৬. টিউশন ফি’র ব্যাংক ড্রাফটঃ প্রতিষ্ঠান ভেদে টিউশন ফি ভিন্ন হয়ে থাকে।
৭. ভাষাগত দক্ষতার প্রমানপত্রঃ আবেদন ও ভর্তি প্রসেসিং অংশে দেখুন।
৮. পুলিশ ছাড়পত্র: পুলিশ ছাড়পত্রের জন্য নিজ নিজ থানায় যোগাযোগ করে একটি নির্দিষ্ট ফি প্রদানের মাধ্যমে এটি সংগ্রহ করা যায়। তবে আপনার বিরুদ্ধে দেশ ও আইনবিরোধী কন কাজে জরিত থাকের অভিযোগ থাকলে আপনি পুলিশ ছাড়পত্র পাবেন না

তাই ঊচ্চশিক্ষার্থে বিদেশ যেতে ইচ্ছুক তরুণ শিক্ষার্থীদের বলতে চাই, হরিপদ কেরানি থেকে আকবর বাদশাহ হয়ে যাবার স্বপ্নে বিভোর না থেকে বাস্তব প্রতিকূল দিকগুলোর কথা বিবেচনায় এনে তবেই সামনের দিকে এগোবেন। এতে আপনাদের জন্য, পরিবারের জন্য তথা জাতির জন্য হবে শুভ ও মঙ্গল-উচ্চশিক্ষা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান? কোন শহরের কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে কী পড়ানো হয়, কোথায় বৃত্তি পাওয়া যায়, ভিসা পেতে কী করতে হবে?

এখানে সবার আগে গুরুত্ব দিন আপনার পরিবারের আর্থিক অবস্থা। নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী দেশ এবং ইউনিভার্সিটি নির্বাচন করুন। তারপর আপনার কোয়ালিটি অফ এডুকেশন, যে আপনার রেজাল্ট কোন দেশের জন্য উপযুক্ত।

আমরা  গ্রামীন টুরস এন্ড ট্রাভেলস  আমেরিকা ,কানাডা, যুক্তরাজ্য,ইউরোপের এবং এশিয়ার স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ  গুলোতে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি এবং স্টুডেন্ট ভিসা প্রসেসিংয়ে সার্বিক সহযোগীতা করে থাকে। এছাড়া এটি ইমিগ্রেশন ভিসা এবং  বিশ্বের যে কোন দেশের ভ্রমন ভিসা প্রসেসিং করে থাকি। ভিসা প্রসেজিং এর বিষয়ে আমাদের সুদীর্ঘ অভিজ্ঞতার পাশাপাশি আমাদের রয়েছে সুদক্ষ জনবল।

গ্রামীন টুরস এন্ড ট্রাভেলস  আপনার  ঊচ্চশিক্ষা  বিষয়ক যেকোন সহযোগীতা প্রয়োজনে তথ্য বা য়ে কোন পরামর্শ ,স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ  গুলোতে ভর্তি   ও ভিসা প্রসেসিং  সহায়তায়আমরা  সর্ব   পরিসরে প্রস্তুত. আমাদের মিশন ও ভিষন হচ্ছে বিশ্বব্যপী সকল জাতীর সাথে  শিক্ষা ও পয্টন্ভিক্তিক সুদৃড় নেটওয়াক্ গড়ে তোলা সকল   সার্ভিস এর পাশাপাশি আপনাকে দিচ্ছে আপনার কাঙ্খিত সময়ে, সর্বনিম্ন রেটে-সাশ্রয়ী ও নিশ্চিত, নিরাপদ শিক্ষা জীবনের অন্গীকার।  তারই ধারাবাহিকতায় আমরা সাফলভাবে এগিয়ে চলছি। আমরা দৃড়ভাবে বিশ্বাস করি টুরস এন্ড ট্রাভেলস ব্যবসার মাধ্যমে সারাবিশ্বে বাংলাদেশকে পরিচিত করে তোলার পশাপাশী দেশের অর্থনীতির সমৃদ্ধিতে  ব্যাপক ভুমিকা রাখতেপারে।

সাধারনত ৩ ধরনের ভিসা প্রসেসিং এর কাজ করে থাকে। ধরণগুলো হলো:

(ক) ইমিগ্রেশন ভিসা;

(খ) স্টুডেন্ট ভিসা 

(গ) ট্যূরিস্ট ভিসা।

তন্মধ্যে এই প্রতিষ্ঠানটি স্টুডেন্ট ভিসা প্রসেসিং এর কাজটি গুরুত্ব সহকারে করে থাকে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

সকল একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট এবং সার্টিফিকেট এর মূল কপি ও ফটোকপি (বোর্ড ভেরিফাইড+শিক্ষা মন্ত্রণালয়+ফটোকপি করা একসেট কাগজপত্রের নোটারী পাবলিক হতে হয়)
পাসপোর্টের প্রথম পাঁচ পাতার ২ সেট ফটোকপি নোটারী পাবলিক করা সহ জমা দিতে হ
সাদা ব্যাকগ্রাউন্ডের ৮ কপি ৩×৪ সেমি সাইজের ছবি জমা দিতে হয়
কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয় হতে সুপারিশ পত্র
নিজের বা জামানতকারীর ব্যাংক স্টেটম্যান্ট ও ব্যাংক সার্টিফিকেট থাকতে হয়। (পেছনের ৩ মাসের)
আয়ের উৎস (ট্রেড লাইসেন্স/চাকুরীর সনদপত্র)
আয়কর সনদপত্র
বাবা মায়ের জাতীয় পরিচয় পত্রের ও পাসপোর্টের ফটোকপি
জন্ম নিবন্ধনের (ইংরেজী) মূলকপি এবং ফটোকপি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হতে নোটারী পাবলিক করতে হয়।
সিটি কর্পোরেশন বা সমমানের প্রতিষ্ঠান হতে পারিবারিক সম্পর্কের সনদপত্র ইংরেজীতে
পুলিশ ক্লিয়ারেন্স
সটুডেন্ট পরিচয়পত্র ও ফটোকপি
অভিভাবকের সম্মতিপত্র

কোন দেশের ক্ষেত্রে আই ই এল টি এস ষ্কোর কত প্রয়োজন

উচ্চ শিক্ষায় বিদেশ যেতে গিয়ে প্রতারিত হতে না চাইলে বা ফাঁদে না পড়তে চাইলে, নিম্নের বিষয়গুলো মাথায় রাখুন :

১।পারলে নিজে চেষ্টা করুন, তবে অনেক ক্ষেত্রে সেটা সম্ভব হয় না বলে Consulting Firm এর সাহায্য নিতে হয়।তবে কখনো ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ বা ব্যক্তির মাধ্যমে ভর্তি প্রসেস করবেন না । মনে রাখবেন ব্যক্তির থেকে প্রতিষ্ঠানের দায়বদ্ধতা অনেক বেশী ।

২। আপনি নিজেই আপনার কাঙ্ক্ষিত বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে তথ্য নিন, ইন্টারনেটে সার্চ দিয়ে সকল তথ্য, ওখানকার পরিবেশ সম্পর্কে জেনে নিন । Consulting Firm আপনাকে যে তথ্য দিবে তা পুঙ্খানুপুঙ্খ যাচাই করে নিন । Consulting Firm আপনাকে তথ্য দিয়ে সহায়তা দিতে পারবে মাত্র, কিন্তু সিদ্ধান্ত আপনার, এবং সেটা আপনার সারা জীবনের জন্য Important.
৩।শিক্ষার্থীদের প্রধান লক্ষ্য থাকে USA, Canada , Australia এর ভাল University তে ভর্তি হওয়ার। কিন্তু এসব দেশে IELTS, Bank Sponsor , এবং টিউশন ফী বেশী সর্বোপরি ভিসা সাফল্যের হার বাংলাদেশ থেকে কম। এসব জেনে অগ্রসর হবেন, কারন Consulting Firm আপনার ফাইলটি গ্রহণ করলে তারা সার্ভিস চার্জ কেটে রাখবে, ভিসা মেডিক্যাল ইত্যাদি বাবদ আপনার অনেক অর্থ নষ্ট হবে তাই আগে Eligibility Judge করুন পরে সিদ্ধান্ত নিন । আপনি Eligible হলে আবেদনে সমস্যা নেই ।

৪। খরচের তথ্য ভাল করে বুঝে নিন, আপনার পিতা মাতার ব্যয়িত প্রতিটি টাকা বুঝে খরচ করুন, প্রয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয়ে ইমেইল করুন । Refundable এবং Non Refundable টাকার হিসেব বুঝে নিন । receipt ( মানি রিসিপ্ট ) বুঝে নিন ।

৫। যে প্রতিষ্ঠান থেকে আপনার ভিসা প্রসেস করছেন তাদের Website,ঠিকানা সুনাম সম্পর্কে ভাল করে জানুন । সেখানকার Management এ কারা আছে তাদের সম্পর্কে জানুন, তাতে আপনার সঠিক তথ্য পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়বে।

৬। দেশের বাইরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে কিছু বিষয় মাথায় রাখবেন, যে ওখানকার খাবার একদম আপনার বাসার মত হবে না ( এ কথা নিজ দেশের বিশ্ববিদ্যালয় হলগুলোর জন্যও সত্য)। তাছাড়া কিছুদিন পরে Home Sickness কাজ করতে পারে। তাই অনেক বাংলাদেশী আছে এই ধরনের বিশ্ববিদ্যালয় নির্বাচন করুন ।

৭। আবেদন ফর্ম থেকে শুরু করে বিদেশে পৌঁছা পর্যন্ত অনেক খুঁটি নাটি বিষয় থাকে , সব ধাপ সম্পর্কে Consulting Firm থেকে জানুন এবং সাহায্য নিন । এটা আপনার অধিকার।

৮।কাজ করা যাবে কি যাবে না জেনে নিন । পড়াশুনাকে প্রাধান্য দিন । মনে রাখবেন আয় আপনি অনেক করতে পারবেন কিন্তু পড়াশুনা করার সুযোগ সব সময় পাবেন না

৯। অন্যের কথা শুনতে পারেন কিন্তু সিদ্ধান্ত নিবেন নিজে, কারো ঋণাত্মক কথায় প্রভাবিত হবেন না । দেখবেন যে যখন আপনি বিদেশে উচ্চশিক্ষা নিজে অবস্থান তৈরি করবেন তখন এরাই আপনাকে স্যালুট করবে ।

১০ । বিনয়ী আচরণ করুন , এমন কিছু করবেন না যাতে দেশ মাতার বদনাম হয়, নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে পরিবার এবং দেশের মুখ উজ্জল করুন ।

কথায়বলে যৌবন হল যুদ্ধে যাবার বয়স , সুতরাং দেশের বাইরে পড়ার সময়োপযোগী বুদ্ধিদীপ্ত, সাহসী সিদ্ধান্তের জন্য আপনাকে অভিনন্দন।

প্রায় ১ কোটি ব.কি.মি’র বিশাল দেশ কানাডা। জনসংখ্যা সাড়ে তিন কোটিরও নীচে, বৃদ্ধির হার অত্যন্ত কম (০.৯%), পাশে আবার আমেরিকার বিশাল বাজার। সব মিলিয়ে দেশটিতে মানুষজনের সংকট সব সময় লেগেই থাকে।সুন্দর ও সহজ ইমিগ্রেশন ব্যবস্থার সুযোগ নিয়ে সারা বিশ্ব থেকে বিভিন্ন জাত, ধর্ম, বর্ণ, মত ও পথের মানুষদের এদেশটি যেন এক মিলনমেলা!
হাইওয়ের দু’পাশে হাজার হাজার মাইল খোদার বিস্তীর্ণ অনাবাদী ও উদার জমিন দেখে মনে হয় দেশটি যেন চায়না, ভারত ও বঙ্গোপসাগরের তীরবর্তী জনবহুল দেশ সমূহের মানুষদের জন্য অপেক্ষায় রয়েছে পৃথিবীর জনসংখ্যার ভারসাম্য ফিরিয়ে আনার জন্যে। সবার শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান, সরকারের সদয় আচরণ ও সহযোগিতা অভিবাসী হওয়ার জন্য দেশটি তাই বাড়তি মনোযোগ কাড়তেও সক্ষম হয়েছে।

কানাডায় স্টুডেন্ট ভিসার জন্য IELTS এর স্কোর লাগে ৫.৫।প্রয়োজনীয় IELTS/TOEFL score না থাকলে একাডেমীক কোর্স শুরু করার পূর্বে (English as a second language) অথবা EAP (English for Academic purposes) কোর্স করে নিতে হয় । পড়াশুনার পাশাপাশি সপ্তাহে ২০ ঘন্টা পার্টটাইম ও গ্রীষ্মকালীন ছুটির সময় full time Job-Gi সুযোগ রয়েছে। (Per hour 8 CAD $ ইনকাম করা যাবে।)। কানাডায় স্টুডেন্ট ভিসা প্রসেসিংয়ে ৬ থেকে ৮ সপ্তাহ সময় লাগে। এসএসসি/এইচএসসি তে এ+, আইএলটিএস এ ৬.৫ এবং টোফেল পরীক্ষায় ৮০+ পেলে একজন শিক্ষার্থী কানাডায় স্কলারশীপের জন্য আবেদন করতে পারে।

যে সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য প্রতিষ্ঠানটি কাজ করে থাকে

কানাডা  ইউনিভার্সিটি

উইলফ্রিড ল্যাউরিয়ার ইউনিভার্সিটি
ইউনিভার্সিটি অব মানিটোবা
ইউনিভার্সিটি অব রেজিনা
ট্রিনিটি ওয়েস্টার্ণ ইউনিভার্সিটি
ইউনিভার্সিটি অব দি ফ্রাসার ভ্যালি
মাউন্ট এলিসন ইউনিভার্সিটি

কানাডা   কলেজ

কনেসটোগা কলেজ
সেন্টেনিয়াল কলেজ

 

 

 

 

যুক্তরাজ্যে একজন শিক্ষার্থীর টিউশন ফি ৩,০০০ থেকে ৫,০০০ পাউন্ড, হোস্টেল ফি ৩২,০০০ টাকা, মেডিকেল টেষ্ট ৪,০০০ টাকা, বিমান ভাড়া ৬০,০০০ টাকা সর্বমোট ৪ থেকে সাড়ে ৫ লাখ টাকা লাগতে পারে। সর্বনিম্ন ২৮ দিনের ১০ লক্ষ টাকা থেকে ১২ লক্ষ টাকা ব্যাংক সলভেন্সী দেখাতে হয়। যুক্তরাজ্য স্টুডেন্ট ভিসার আবেদনফর্মের সাথে পাসপোর্টের প্রথম ৫ (পাচঁ) পাতার ফটোকপি, সকল পরীক্ষার সার্টিফিকেট এবং মার্কসিটের ফটোকপি, One year study in English Certificate এর ফটোকপি ,(যদি IELTS করা না থাকে),

টপ ইউনিভার্সিটি

 

ইউনিভার্সিটি অব ইস্ট এঞ্জিলা

 

ইউনিভার্সিটি অব এক্সেটার র‌্যাঙ্ক

 

নিউক্যাসেল ইউনিভার্সিটি

 

গ্ল্যাসকো ক্যালেডোনিয়ান ইউনিভার্সিটি

 

দি ইউনিভার্সিটি অব ম্যানচেস্টার

 

সিটি ইউনিভার্সিটি লন্ডন

 

কুইন’স ইউনিভার্সিটি বেলফাস্ট

 

ইউইএ লন্ডন

 

সেন্ট গর্জ’স, ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন

অন্যান্য ইউনিভার্সিটি

 

দি ইউনিভার্সিটি অব গ্রীণউইচ

 

কনভেন্ট্রাই ইউনিভার্সিটি

 

অক্সফোড ব্রুক্স ইউনিভার্সিটি

 

দি ইউনিভার্সিটি অব শেফিল্ড

 

ইউনিভার্সিটি অব বেডফ্রোডশায়ার

 

দি ইউনিভার্সিটি অব নর্থাম্পটন

 

সিটি ইউনিভার্সিটি লন্ডন

 

মিডেলসেক্স ইউনিভার্সিটি

 

নটিনহ্যাম ট্রেন্ট ইউনিভার্সিটি

 

ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্ট লন্ডন

 

ইউনিভার্সিটি অব বোল্টন

 

লন্ডন ম্যট্রোপলিটান ইউনিভার্সিটি

 

বাকিংহ্যাম নিউ ইউনিভার্সিটি

 

এন্জিলা রুসকিন ইউনিভার্সিটি

 

ইউনিভার্সিটি অব সান্ডারল্য্যন্ড

 

ইউনিভার্সিটি অব উলস্টার

 

ব্রোনমাউথ ইউনিভার্সিটি

কলেজ

 

অক্সফোড টিউটোরিয়াল কলেজ

 

হাইব্রাগি কলেজ

 

হ্যাকনি কমিউনিটি কলেজ

 

ক্যামব্রিজ এডুকেশন গ্রুপ

 

ডেভিড গেইম কলেজ

 

কাপলান ফাইনানসিয়াল।

 

হলব্রোন কলেজ

 

ল্যান্ডরিল্লো কলেজ ইন্টারন্যাশনাল

 

ইথাম গ্র্যাজিয়ুট স্কুল

 

ফুলহাম এন্ড চেলসি কলেজ

 

নিউক্যাসেল কলেজ

 

ইনটো

 

কাপলান ইন্টারন্যাশনাল কলেজ লন্ডন

 

দি শেফিল্ড ইন্টারন্যাশনাল কলেজ

 

নটিংহাম ট্রেন্ট ইন্টারন্যাশনাল কলেজ

 

লিভারপুল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ

 

গ্লাসগো ইন্টারন্যাশনাল কলেজ

 

অক্সফোড টিউটরিয়াল কলেজ

 

হাইবার্গ কলেজ

 

কনভেন্টারি সিটি কলেজ

 

লন্ডন স্টাডি সেন্টার

 

মিলিনিয়াম সিটি একাডেমী

 

৩৬০ জি এস পি কলেজ

 

মেরিটাইন গ্রীন উইচ কলেজ

 

ম্যানচেস্টার ইন্টারন্যাশনাল কলেজ

 

এল এস বি এফ

 

আইকন কলেজ

 

ভিক্টোরিয়া কলেজ

 

কভেন্ট্রি কলেজ

 

এ্যালপার্টন কলেজ

 

অ্যানিসল্যান্ড কলেজ

উক্ত কলেজের বিষয়গুলো

 

টুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট

 

আইটি

 

সিএসই

 

ইইই

 

এসিসিএ

 

ডিপ্লোমা

 

বিবিএ

 

মাস্টার্স

 

পিজিডি

 

ডিবিএ

 

 

 

 

 

 

 

যারা ইউরোপের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সমস্যায় ভুগছেন অথবা ইতালিতে ফ্যামিলি ভিসা নিয়ে নানা ধরণের সমস্যায় ভুগছেন? অথবা দেশে জমা দিয়ে ভিসা পাচ্ছেন না? বা ফ্যামিলি ভিসা থেকে শুরু করে ইতালি ও ইউরোপের যেকোনো ধরণের ভিসা সংক্রান্ত বিষয়ে আইনি সহায়তার জন্য যোগাযোগ করতে পারেন।

আমাদের সাথে যোগাযোগের বিস্তারিতঃ

 

 

 

https://www.facebook.com/grameentours

https://www.facebook.com/grameentours

৪ কপি রঙিন (35x45mm) ছবি এবং CV জমা দিতে হয়। এখানে পড়াশুনার পাশাপাশি চাকুরী করার যথেষ্ঠ সুযোগ রয়েছে। চাকুরী করে পড়াশুনা এবং থাকা-খাওয়ার খরচ চালানো যায়।

 

সাইটি আপডেট এর কাজ চলছে।আমাদের সাথে যোগাযোগ করলে আপনাকে কোন প্রকার ফী প্রদান করতে হবে না।আমরা কোন এম্বেসী এজেন্ট নই।বা আমরা আপনার ভিসা করে দেয়ার মতো প্রতিশ্রুতি কখনোই করতে পারিনা।আমরা কেবল মাত্র আপনার ভিসা প্রসেজিং এর ক্ষেত্রে পরামর্শক ।আমাদের কোন প্রকার অগ্রিম টাকা দিতে হবে না।আমাদের সাইটের সকল তথ্য পরিবর্তন হতেপারে যে কোন  মুহুর্তে তাই সকল নিয়ম কানুন এর জন্য অবশ্যই দূতাবাসের ওয়েব সাইট অনুসরন করুন।

Rustic Enterprise Performance Management System © 2017 Frontier Theme
Translate »

Enjoy this blog? Please spread the word :)

Advertisment ad adsense adlogger